তাবিজ-কবচ চিকিৎসা-বিজ্ঞান ও ব্যাবসা

পুরান ঢাকায় তাবিজ-কবজের দোকান

তাবিজ-কবচ

ঢাকা শহরের ব্যস্ততম রাস্তার একটি মিডফোর্ট রোড।  এরচেয়ে বেশি পরিচিতির প্রয়োজন নাই।  অন্য দশটি দোকানের মতো এটিও একটি।  কিন্ত দোকানের পন্যের ধরন দেখে ব্যস্ত সড়কেও ভিন্ন চিন্তার উদ্রেগ হলো।  দোকানের পন্য শুধুই তাবিজ-কবচ।  চিন্তার বিষয় নতুন কিছু না, তাবিজ-কবচ চিকিৎসা-বিজ্ঞান ব্যবসা।  চিন্তার উপাদানেরও একই স্থানে পাশা-পাশি অবস্থান।  প্রাচীন ঢাকার এমনকি সারা দেশের বৃহত্তম ব্যবসা স্থল মিডফোর্ট, বিশেষ করে সারাদেশে আধুনিক চিকিৎসা-বিজ্ঞানের ঔষধাধি যন্ত্রপাতি সরবরাহের কেন্দ্রসস্থল, পাশেই স্থাপিত বৃহত্তম চিকিৎসা কেন্দ্রের একটি মিডফোর্ট হাসপাতাল আর এরই মাঝে সারাদেশে সরবরাহকারি তাবিজ-কবচের দোকান।

লেখা কোন শিক্ষা, পেশা, ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠনকে ছোট বা হেয় করার জন্য নয়।  পুরোটাই নিজস্ব জ্ঞান পারি-পার্শ্বিকতার তুলনামূলক যুক্তিচিন্তা।  নিজের চিন্তাকে অন্যের চিন্তার সাথে তড়িৎ তুলনা করার জন্য আধুনিক প্রযুক্তির সুবিধা নিয়ে ইন্টারনেট সার্চ করতেই আলোচ্য বিষয়ের সংশ্লিস্ট আরও অনেক বিষয় যুক্তি-তর্ক পেয়েগেলাম।  তম্মধ্যে ধর্মীয় দৃষ্টি, বিশেষ করে ইসলামের দৃষ্টিতে তাবিজ-কবচ ব্যবহারের যৌক্তকতা।

আধুনিক বিজ্ঞান, বিশেষ করে চিকিৎসা-বিজ্ঞান অনেক আগেই  এসব তাবিজ-কবচের যৌক্তিকতাকে বর্জন করেছেন।  ধর্মীয় দৃষ্টিতেও তাবিজ-কবচ ব্যবহার না করার পক্ষের যুক্তিই অধিক জোড়াল, তথ্যনির্ভর যুক্তিসঙ্গত।

আসলে কি থাকে এসব  তাবিজ-কবচে !

অধিকাংশ তাবিজ-কবচের ধারক অংশ বিভিন্ন ধাতব পদার্থ যেমন- তামা, রূপা, সোনা, লোহা, টিন, দস্তা, এ্যলোমিনাম, ইত্যাদির একক বা মিশ্রণে তৈরী করা হয়।  আর ভিতরের মূল উপাদান অধিকাংশ সময়ই গাছ-পালার মূল, শিকড়, লতা, পাতার অংশ বা দো কালামের  অংশ বিশেষের অনুলিপি।  সহযোগি উপাদান সমুহের মধ্যে কখনও কখনও লেখার জন্য জাফরাণ জাতিয় বিশেষ কালি ব্যবহার করা হয়, তাবিজ বা কবচের মুখ আটকানোর জন্য ব্যবহৃত হয় মোম বা পবিত্র স্খনসমুহের মাটি, অধিকাংশ সময় কবচের গায়ে এ্যম্বুশ করা আরবী হরফে আল্লহু লেখা থাকে। 

বুদ্ধাদের যুক্তি-তর্কে তাবিজ-কবচ

 যেকোন যুক্তি-তর্কের মতো তাবিজ-কবচের ক্ষেত্রেও সব বুদ্ধারা যারযার যুক্তির পক্ষে বিভিন্ন উদাহরণ, তথ্য-উপাত্য উপস্থাপন করে যুক্তি গ্রহণযোগ্য করার প্রায়শ চালান।  যারা তাবিজ-কবচ ব্যবহারের পক্ষে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার চেষ্টা চালান তারা অবশ্য তেমন জোড়ালো কোন যুক্তি উপস্থাপন করতে পারেন না।  তাদের প্রধানতম যুক্তি এ বিদ্যা আদি কাল থেকে চলে আসছে আর অনেক মানুষ যুগযুগ ধরে ব্যবহার করছে,  তাই এর প্রতি অঘাত বিশ্বাসই তাদের বড় যুক্তি।

ইসলামিক বুদ্ধাদের মধ্যে যারা তাবিজ-কবচ ব্যবহারের পক্ষে, তাদের যুক্তিও এমন যে অনেক আগে থেকে এসব ব্যবহার হয়ে আসছে এবং অনেক ইসলামিক ব্যাক্তিত্বরা এর পক্ষে ছিলেন বলে দাবি করেন।  তাদের যুক্তি আমাদের সমাজে বুজুর্গ আলেম ও পির-মাশায়েখগণ দ্বারা জানা-অজানা নানা রোগ-ব্যাধিতে আক্রান্ত লোকজনকে ঝাড়-ফুঁক তাবিজ-কব দেওয়ার প্রচলন রয়েছে, আর তারা থেকে উপকার লাভ করেন যার প্রচলন আবহমান কাল থেকেই চলে আসছে  কিন্ত কুরআন-হাদিসের আলোকে তাবিজ-কবচ ব্যবহারের পক্ষে যেসব ব্যাখ্যা প্রদানের চেষ্টা করেন তা তেমন গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয়ন্।  

বরং তাবিজ-কবচ ব্যবহার না করার পক্ষের যুক্তি অনেক যুক্তিসঙ্গত বলে মনে হয়, যেমন কুরআন-হাদিসে মধুকে সরাসরি ঔষধি গুণসম্বলিত হিসেবে বলা হয়েছে। তাছাড়া অধিকাংশ রোগ থেকে নিরাপদ থাকার অনেক প্রেষ্কিপশন কুরআন-হাদিসে বলা আছে যা আধুনিক চিকিৎসা-বিজ্ঞান দ্বারা প্রমানিত, যেমন খাবারের অনিয়মজনিত, শারীরিক ও মানষীক গঠনজনিত, সামাজিক ও দৈহিক মেলামেশা সংক্রান্ত ইত্যাদি। ইসলামের প্রথম যুগে এমনও দেখাগেছে কোন এক ডাক্তার শহরে ছয় মাস পর্যন্ত বসে থেকে কোন রুগী পান নাই।  তারমানে এই নয় যে তারা কুরআন-হাদিস তাবিজ-কবচে ভরে গলায় ঝুলিয়ে রেখেছিলেন বলে কোন রোগ-ব্যাধি হয়নি। ধরুন আপনি কোন রোগের জন্য  ডাক্তারের কাছে গেলেন, ডাক্তার আপনাকে প্রেষ্কিপশন দিলেন।  এখন প্রেষ্কিপশন অনুযায়ি ঔষধ খেতে হবে, না প্রেষ্কিপশনটি গলায় ঝুলিয়ে রাখলেই রোগ সেরে যাবে।

সরল  মানুষ  সহজ  যুক্তি

তাবিজ-কবচে যেসব জিনিস ব্যবহার করা হয় তা পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে।মানব শরীর মূলত লক্ষ লক্ষ রাসায়নিক ক্রীয়া সংগঠনের কারখানা, যা প্রতিনিয়া ঘটে যাচ্ছে। বিভিন্ন ধাতব পদার্থ এসব রাসায়নিক ক্রীয়াকে প্রভাবিত করতে পারে। যেমন তেজসক্রীয় পদার্থের মানব শরীরে প্রভাব আমরা কম-বেশি সবাই জানি। তেমনি প্রত্যেক পদার্থ্ই কম-বেশি তার চার পাশের বস্তকে প্রভাবিত করতে পারে বলে আমরা ধরতে পারি। তেমনি তাবিজ-কবচে যেসব ধাতু ব্যবহৃত হয় তার প্রভাব থাকলেও সেটা নির্ধারণ ও প্রয়োগের কোন পদ্ধতি এ ক্ষেত্রে ব্যবহার হয় না। যেমন- মানব শরীরের জন্য লৌহ একটি প্রয়োজনীয় উপাদান হলেও আমরা প্রতিদিন এক টুকরা লৌহ খেতে পারি না।

উদ্ভিদ, গাছ-পালা, লতা-পাতার গন্ধ, স্পর্শ ইত্যাদি গুণও অনেক সময় মানব শরীরে সরাসরি প্রভাব বিস্তার করতে পারে, যেমন পিয়াজ চোখের সামনে ধরলে চোখে পানি আসে বা মরিচ নাকের কাছে আনলে হাছি আসে। কিন্ত তাবিজ-কবচের ক্ষেত্রে এমন কোন পদ্ধতি আবিস্কারের কোন তথ্য প্রমান জানা নাই।

তাবজ-কবচের যেসব দোয়া-কালাম লিখা থাকে তা হয়তো তথ্যবহুল। কিন্ত ডাক্তারের প্রেস্কিপশনের মতো, সে অনুসারে ঔষধ খেতে হবে, গলায় ঝুলিয়ে রেখে রোগ সারার নজির বিরল।

আর মসজিদের মোম বা পবিত্রস্থানের মাটি দিয়ে তাবিজ-কবচের মুখ আটকানো সেটা আত্ববিশ্বাস বাড়ানোর কৌশল মাত্র।

তাই তো সরল মানুষ হিসেবে সহজ যুক্তি দ্বারা বিবেচনা করলে তাবিজ-কবচ ব্যবহারের বৈজ্ঞানিক ও ইসলামিক কোন শক্ত ভিত্তি নাই। শুধুই মাত্র ব্যবসা! আর ব্যবসার পরিধি একটি মাত্র দোকানের তাবিজ-কবচের মওজুদ দেখেই অনুমেয়।

Comments

  1. সহজ সরল মানুষগুলোই বেশি এসবের স্বীকার হয়,
    আমাদের আরও সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

    ReplyDelete
  2. এতো তাবিজ কার গলায় ঝুলবে?

    ReplyDelete

Post a Comment

Popular posts from this blog

Star Delta Starter Line Diagram and Its Working Principle

ELECTRICAL DISTRIBUTION BOARD DB WIRING

স্ট্যাটিক ইলেকট্রিসিটি এর বাস্তব ব্যাবহার

SURGE ARRESTERS SPECIFICATION FOR 132 KV & 33 KV LINE

ভুমিকম্পের কল্প কথা

Why DC System Is More Dangerous Than AC System?

All Bangla Newspaper

You Should Know all About Fire Extinguisher Using Guide

CABLE FITTING BOXES AND GLANDS

How Economizer Works in Centrifugal Chiller

wazipoint

DMCA protected